পল্লী বিদ্যুৎ মিটারের জন্য কীভাবে আবেদন করব?

আমি পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন করার জন্য যা যা করতে হবে তা নিয়ে এই পোষ্টটি করেছি আপনাদের উপকারের জন্য । আশা করি আপনারা সবাই ভাল আছেন। সবার শুভ্রকামনা জানিয়ে আজকে টিউন শুরু করছি। 

আসলে অনেকেই কিন্তু পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আনতে কি কি প্রয়োজন জানেন আবার অনেকেই জানেন না। আপনি যদি নিজে পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আনেন তাহলে বেশি টাকা লাগবে না। তাই আপনারা নিজে পল্লী বিদ্যু মিটার নিয়ে আসেন তা হলে আপনার অনেক টাকা বেঁচে যাবে।



পল্লী বিদ্যুৎ মিটারের জন্য কীভাবে আবেদন করব


1. আবেদনকারীর ছবি 2. NID Card 3. বাড়ীর পর্চা 4. বাড়ীর বা অন্য পুরাতন মিটারের একটি বিলে কপি 5. রড র্বোড মেমো 6. http://www.reb.gov.bd/site ১) আবেদন করার সময় ছবি, জাতীয় পরিচয় পত্র ও সংযোগস্থলের খারিজের স্ক্যান কপি সংযুক্ত করতে হবে। ২) সার্ভিস ড্রপের দুরত্ব (সংযোগস্থল হইতে সার্ভিস পোলের দুরত্ব)১৩০ ফুটের মধ্যে হতে হবে। ৩) সঠিক ভাবে মেপে সার্ভিস ড্রপের দুরত্ব প্রদান করুন। সার্ভিস ড্রপের দুরত্ব সঠিক না হলে তারের দির্ঘ্য কম/বেশি পারে। ভুল তথ্য দিলে পরবর্তীতে সংযোগ পেতে বিলম্ব হতে পারে। ৪) মোট লোড ৫০ কিলোওয়াট এর বেশি হলে এইচটি সংযোগের নিয়মাবলী প্রযোজ্য হবে। 


অনলাইনে সার্ভে করার পর প্রয়োজনীয় অর্থ (আবেদন ফি, মেম্বারশীপ ফি ও নিরাপত্তা জামানত) জমাদানসহ সকল নির্দেশনা এসএমএস এর মাধ্যমে জানানো হবে। 


 আবেদন ফরমের লাল(*) চিহ্নিত ক্ষেত্রগুলো অবশ্যই পূরন করতে হবে। ৭) আবেদন পত্রে গ্রাহকের নিজস্ব মোবাইল নম্বর প্রদান করুন। ৮) আবেদনের পর প্রাপ্ত ট্র্যাকিং আইডি এবং পিন নম্বর অবশ্যই সংরক্ষণ করতে হবে। ৯) সংযোগের অর্থ ডাচবাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং (রকেট) এর মাধ্যমে পরিশোধ করা যাবে। ১০) ডাচবাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে ফি পরিশোধ করার জন্য নিচে নিয়মাবলী দেখে নিন।


আবেদন করার নিয়মাবলী


  • আবাসিক সংযোগের ক্ষেত্রেঃ আবেদন করার সময় ছবি, জাতীয় পরিচয় পত্র ও সংযোগস্থলের খারিজের স্ক্যান কপি সংযুক্ত করতে হবে।
  • আবেদন পত্রে গ্রাহকের নিজস্ব মোবাইল নম্বর প্রদান করুন।
  •  আবেদনের পর প্রাপ্ত ট্র্যাকিং আইডি এবং পিন নম্বর অবশ্যই সংরক্ষণ করতে হবে।
  • সংযোগের অর্থ ডাচবাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং (রকেট) এর মাধ্যমে পরিশোধ করা যাবে।
  •  ডাচবাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে ফি পরিশোধ করার জন্য নিচে নিয়মাবলী দেখে নিন।
  • আবেদন ফরমের লাল(*) চিহ্নিত ক্ষেত্রগুলো অবশ্যই পূরন করতে হবে।
  • সার্ভিস ড্রপের দুরত্ব (সংযোগস্থল হইতে সার্ভিস পোলের দুরত্ব)১৩০ ফুটের মধ্যে হতে হবে।
  • সঠিক ভাবে মেপে সার্ভিস ড্রপের দুরত্ব প্রদান করুন। সার্ভিস ড্রপের দুরত্ব সঠিক না হলে তারের দির্ঘ্য কম/বেশি পারে। ভুল তথ্য দিলে পরবর্তীতে সংযোগ পেতে বিলম্ব হতে পারে।
  • মোট লোড ৫০ কিলোওয়াট এর বেশি হলে এইচটি সংযোগের নিয়মাবলী প্রযোজ্য হবে।
  • অনলাইনে সার্ভে করার পর প্রয়োজনীয় অর্থ (আবেদন ফি, মেম্বারশীপ ফি ও নিরাপত্তা জামানত) জমাদানসহ সকল নির্দেশনা এসএমএস এর মাধ্যমে জানানো হবে।

Related Post:

  • নিজেই নিজের ভোটার আইডি কার্ড দেখবেন কি করে
  • ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখব | ফ্রিল্যান্সিং কাকে বলে |
  • বন্ধ হয়ে যাওয়া ফেসবুক একাউন্ট ফিরে আনার উপায়
  • প্লে স্টোর ডাউনলোড অ্যাপ 
  • পায়খানা ক্লিয়ার করার সবচেয়ে সহজ উপায়
  • সেক্সে রাজি করার উপায় 2022
  • উপায় মোবাইল ব্যাংকিং অফার 2022
  • রাতারাতি ফর্সা হওয়ার সহজ উপায় ২০২২
  • পেটের মেদ কমানোর সহজ উপায় 
  • চুল পড়া বন্ধ করার উপায় 2022
  • মোবাইলে ভাইরাস দূর করার উপায় 
  • অ্যাসাইনমেন্ট লেখার নিয়ম
  • ফেসবুক থেকে টাকা ইনকাম
  • জিমেইল একাউন্ট খোলার সহজ উপায়

  • Post a Comment

    Previous Post Next Post